৩১ মে ২০২০,   ঢাকা, বাংলাদেশ  
Login          

দেশে মৃত্যু বেড়ে ২৯৮, মোট শনাক্ত ২০ হাজার ছাড়ালো




দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে এক হাজার ২০২ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এখন পর্যন্ত এটাই ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ শনাক্ত। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হলেন ২০ হাজার ৬৫ জন। 


গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন আরও ১৫ জন। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ২৯৮ জনে। 


গত ২৪ ঘণ্টায় মোট সুস্থ হয়েছেন ২৭৯ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত সুস্থ হলেন তিন হাজার ৮৮২ জন।


শুক্রবার (১৫ মে) বেলা আড়াইটায় কোভিড-১৯ সম্পর্কিত সার্বিক পরিস্থিতি জানাতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনে এসব তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা।


দেশে কোভিড-১৯ রোগী প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। সেই হিসাবে ৬৯তম দিনে এসে শনাক্ত ২০ হাজার ছাড়ালো।


তিনি জানান, মারা যাওয়া ১৫ জনের মধ্যে পুরুষ সাত জন, নারী আট জন। এদের মধ্যে বয়সের হিসাবে ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে দুই জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে তিন জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে আট জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে একজন এবং ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন রয়েছেন।


নাসিমা সুলতানা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের ৪১টি ল্যাবে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৯ হাজার ৫৩৯টি, এরমধ্যে পরীক্ষা করা হয়েছে আট হাজার ৫৮২টি। ৪১টি ল্যাবের মধ্যে ঢাকার ভেতরে রয়েছে ২০টি, আর ঢাকার বাইরে রয়েছে ২১টি। এ পর্যন্ত দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো এক লাখ ৬০ হাজার ৫১২টি।


স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে রাখা হয়েছে ২৫৯ জনকে, আইসোলেশন থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৮১ জন। দুই হাজার ৭৪৮ জন বর্তমানে আইসোলেশনে রয়েছেন। এ পর্যন্ত আইসোলেশন থেকে মোট ছাড়া পেয়েছেন এক হাজার ৪৭৯ জন।


নাসিমা সুলতানা জানান, দেশে এখন আইসোলেশন শয্যা সংখ্যা আট হাজার ৯৩৪টি। এরমধ্যে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালেই ৫০০টি, ময়মনসিংহ নার্সিং ডরমেটরিতে দুই হাজার আইসোলেশন শয্যার প্রস্তুতি চলছে। ঢাকা মহানগরীতে দুই হাজার ৯০০টি আইসোলেশন শয্যা রয়েছে এবং ঢাকা শহরের বাইরে বিভিন্ন হাসপাতালে আইসোলেশন শয্যা রয়েছে ছয় হাজার ৩৪টি।


তিনি আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে কোয়ারেন্টিনে নেওয়া হয়েছে দুই হাজার ৭৯৭ জনকে। এ সময়ে ছাড়া পেয়েছেন দুই হাজার ছয় জন। এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে ছিলেন মোট দুই লাখ ৩৩ হাজার ৪৭০ জন এবং এখন পর্যন্ত ছাড়া পেয়েছেন এক লাখ ৮৬ হাজার ৬৬৫ জন। বর্তমানে কোয়ারেন্টিনে আছেন ৪৬ হাজার ৮০৫ জন।


আজকের বুলেটিনের শুরুতেই জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করা হয়। সেখানে বলা হয়, বাংলাদেশ একজন বাতিঘরকে হারালো।