০৭ এপ্রিল ২০২০,   ঢাকা, বাংলাদেশ  
Login          

ভোটকেন্দ্র এলাকায় বহিরাগত পেলেই আটক : ডিএমপি কমিশনার




ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটার নয় এমন ব্যক্তি অর্থাৎ বহিরাগতদের  ভোটকেন্দ্রের আশপাশের এলাকায় দেখামাত্র আটক করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মুহা. শফিকুল ইসলাম। আজ শুক্রবার রাজধানীর সিদ্ধেশ্বরী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা জানান।


ডিএমপি কমিশনার বলেন, এখন পর্যন্ত সুষ্ঠু পরিবেশ বিরাজমান। আশা করছি উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট অনুষ্ঠিত হবে। তবে এখনো যারা বহিরাগত ঢাকায় অবস্থান করছেন, তারা দয়া করে ঢাকা ছেড়ে চলে যান।


দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচন যাতে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয় সেই স্বার্থেই ভোটকেন্দ্রের আশপাশে বহিরাগতদের উপস্থিতি গ্রহণযোগ্য হবে না, তাদেরকে আটক করা হবে।


ভোটর ছাড়া কেন্দ্রের আশেপাশে না আসার অনুরোধ জানিয়ে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘আওয়ামী লীগ-বিএনপি বলব না, যিনি ভোটার না তিনি কেন্দ্রের আশপাশে এলে তাকে আটক করা হবে। অর্থাৎ যার যে কাজ আছে তা করবেন অনর্থক কেন্দ্রের আশেপাশে ঘোরাঘুরি করবেন না, করলে আমরা আটক করব। তাছাড়া নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী, ভোটকেন্দ্রের ৪০০ গজের মধ্যে  ভোটার ও অনুমোদিত ব্যক্তি ছাড়া অন্যদের প্রবেশে বিধিনিষেধ আছে।


ঢাকার দুই সিটি মিলিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনা প্রায় দেড় হাজার কেন্দ্রকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে তালিকা করা হয়েছে বলে রিটার্নিং কর্মকর্তারা জানিয়েন। ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘ওইসব কেন্দ্রের আশেপাশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বাড়তি সদস্য মোতায়েন থাকবে। গোয়েন্দারা কাজ করবে।  কোনো কিছু হলে আমাদেরকে তাৎক্ষণিকভাবে জানিয়ে দেবে এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


তিনি বলেন, নির্বাচনে নিরাপত্তা নিশ্চিতে পোশাকধারী ও সাদা পোশাকে ৩০ হাজার পুলিশ সদস্য ছাড়াও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। র‍্যাবের টহল টিমও মাঠে থাকবে।


কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ ও অন্যান্য বাহিনীর আরো ১০ হাজার স্ট্রাইকিং ফোর্স প্রস্তুত থাকবে। সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটারদের নিরাপত্তা দিতে পুলিশ তাদের সবটুকু সামর্থ্য দিয়ে কাজ করবে বলেও জানান তিনি।


এদিকে ভোটার না হয়েও ভোট দিতে গেলে প্রচলিত আইনে সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ভোটে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সমন্বয়ের জন্য গঠিত মনিটরিং সেলের প্রধান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুল ইসলাম। আজ শুক্রবার বিকালে নির্বাচন ভবনে ভোটের আইন-শৃঙ্খলা, ইভিএম ও নির্বাচনের সর্বশেষ প্রস্তুতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ হুঁশিয়ারি দেন।


তিনি বলেন, কেউ অবৈধভাবে ভোট দিয়েছে প্রমাণ পেলে আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়া হবে। বৈধ ভোটারকে ভোট প্রদানে সহযোগিতা দেওয়ার জন্য কমিশন বদ্ধপরিকর। আমরা প্রমাণ করতে চাই, আমরা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করতে সক্ষম। নির্বাচনী আইন লঙ্ঘনে ছয় মাস থেকে সর্বোচ্চ সাত বছরের কারাদণ্ড বা ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডের বিধান আছে।